সার্ভে কাজ কি ? বর্তমান সময়ে অনেক জনপ্রিয় একটি অনলাইন ভিত্তিক আয়ের উৎস হলো এই সার্ভে কাজ। 




সার্ভে কাজ কিঃ আশা করি আপনি দোকান কিংবা শপিংমল অথবা অনলাইন সাইট থেকে প্রোডাক্ট কিনেছেন। অথবা প্রতিমাসেই কিনে যাচ্ছেন।  এখন আপনাকে যদি আপনার বলা হয় যে তাদের প্রোডাক্ট সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন করবে আপনাকে তার উত্তর দিতে হবে।

আপনি হয়তো বলবেন যে আপনার সময় নেই আপনি অনেক ব্যস্ত কিংবা অন্য কিছু হয়তো কেউ রাজী হয়েও যেতে পারেন।
কিন্তু আপনাকে যদি বলা হয় যে তারা আপনাকে তাদের প্রডাক্ট সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন করবে আর আপনি যদি তার উত্তর দেন তবে আপনাকে তারা তার জন্য অর্থ প্রদান করবে। তাহলে আমি শিউর বেশীরভাগ মানুষ এই জরিপে অংশগ্রহন করবে।



ঠিক তেমনি ভাবে আপনাকে এরকম আরো অনেক ধরনের প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে চলুন আমি আরো কিছু উদাহরন আপনাদের দেই।

ব্যাংকে একাউন্ট নিয়ে প্রশ্ন করতে পারে যেমন আপনি মাসে কত টাকা খরচ করেন কত টাকা ইনভেস্ট করেন কিংবা আপনি কি কি সার্ভিস গ্রহন করে থাকেন - যেমন ধরুন হতে পারে সেটা নেটফ্লিক্স প্রিমিয়াম মেম্বারশীপ কিংবা অ্যামাজন অথবা অন্য কিছু। হতে পারে সেটা আপনি কি মোবাইল অপারেটর ব্যবহার করেন কিংবা কত টাকা মাসে বিল দেন এই ধরনের।

অথবা আপনাকে সার্ভে কাজ টিতে আরো প্রশ্ন করা হতে পারে যে আপনি বছরে কতবার ভ্রমন করেন। ভ্রমন ,হোটেল, গাড়ি ব্যবহার পর্যন্ত সব ধরনের প্রশ্নই থাকতে পারে। এছাড়াও কোন বিমানবন্দর ব্যবহার করেন কিংবা আর কি কি সার্ভিস গ্রহন করে থাকেন এই সব বিষয় গুলো এর ভিতর অন্তর্ভুক্ত।

অথবা জিজ্ঞাসা করবে রাজনীতি, ইনভেস্ট, খেলাধুলা, সেলিব্রেটি, চিকিৎসা, আর্ট, ভিডিও, গেমস কিংবা আপনি দৈনান্দিক জীবনে যা করেন তা নিয়েই মূলত প্রশ্ন করা হয়ে থাকে। আর এই সকল প্রশ্নের উওর দেওয়ার জন্য তারা মোটা অংকের অর্থ প্রদান করে থাকে।



প্রতিটি সার্ভে ১ মিনিট থেকে শুরু করে ৬০+ মিনিট পর্যন্ত হয়ে থাকে যত বড় সার্ভে তত বেশী পয়েন্ট বা অর্থ আপনাকে প্রদান করা হবে।
আপনি একটি সার্ভে পূরন করার মাধ্যমে পেতে পারেন সর্বোচ্চ ৭ ডলার কিংবা আরো বেশী তবে সর্বনিম্ন পয়েন্ট এর সার্ভেও রয়েছে সব সময় যে বেশী পয়েন্ট এর সার্ভে আসবে তা কিন্তু ঠিক নয়। 



এই সার্ভে কাজ করে যে কেউ ৩-৪ ঘন্টার মধ্যে ৫ ডলার নিমিষেই আয় করতে সক্ষম হবে। আর যদি আপনার ইংরেজি সম্পর্কে ভালো ধারনা থাকে তবে ১০০-৩০০+ ডলার আয় করা আপনার জন্য কোন সমস্যাই মনে হবেনা মাসে।

কি আপনিও ভাবছেন নাকি কাজ করার কথা তবে বলে নেই বাংলাদেশ এ এরকম কোন ভালো প্লাটফর্ম নাই আর যেগুলো আছে সেগুলো থেকে আপনার ৫ ডলার আয় করতে গিয়ে উলটা ১০ ডলার খরচ হয়ে যাবে।


 সার্ভে কাজ  কিভাবে করবেন?

যদিও বলেছি সার্ভে বাংলাদেশের জন্য প্রযোজ্য না তাই বলে কিন্তু এটা ভাববেন না যে  বাংলাদেশ থেকে  কাজ করা সম্ভব না। অবশ্যই সম্ভব কিন্তু এর জন্য আপনাকে কিছু জিনিস মেনে চলতে হবে এবং কিছু খরচের ব্যাপার ও রয়েছে।
তবে আমি বলবো যা খরচ হবে তা আপনি ৫-৭ দিনের মধ্যে উঠিয়ে ফেলতে পারবেন এবং বাকী ২৩ দিন যা আয় করবেন তা সম্পূর্ণ খরচ উঠার পর প্রফিট হিসাবে থাকবে আপনার কাছে।



সার্ভে কাজ করার জন্য যা প্রয়োজনঃ

  1.  রেসিডেন্সিয়াল আইপি কিংবা ভিপিএস - সর্বনিম্ন খরচ ১০০০ টাকা থেকে শুরু করে ৩০০০+ টাকা
  2. মোবাইল কিংবা পিসি - আশা করি এটা সবার কাছেই আছে যে কোন একটি কিংবা দুটোই
  3. একটি ভেরিফাই করা আমেরিকার ব্যাংক একাউন্ট এবং ডেবিট কার্ড 
  4. ইউএসএ নাম্বার ভেরিফিকেশন ওয়ান টাইম নন ভিওআইপি
  5. ইংরেজীতে দক্ষ হলে তো কথাই নাই। 
মোটামুটি এ কয়টি জিনিস যদি আপনি ব্যবস্থা করতে পারেন তবে আপনি সার্ভে কাজে অংশগ্রহন করতে পারবেন।


সার্ভে কাজের সুবিধাঃ

সুবিধা না থাকলে কি কেউ কাজ করে নাকি? এখানে সুবিধা হলো আপনি কিছু প্রশ্নের উত্তর প্রদান করার জন্য পাবেন ডলার। সার্ভে কাজ করার জন্য অসংখ্য ওয়েবসাইট রয়েছে এবং সাইট অনুসারে তাদের পলিসি ভিন্ন।
মোট কথা আপনি ঘরে বসে সহজেই আয় করতে পারবেন এবং ১০০% ট্রাস্টেড।
আপনি গিফট কার্ড, পেপাল, ব্যাংক ট্রান্সফার , ভার্চুয়াল ভিসা কার্ড ইত্যাদি সিস্টেমে আপনার পেমেন্ট কালেক্ট করতে পারবেন।
এবং আপনি চাইলে আপনার রি-ওয়ার্ড সেল করে কিংবা সরাসরি ডলার কে টাকায় ও কনভার্ট করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারবেন। 


সার্ভে কাজের অসুবিধাঃ

সব কিছুতেই সুবিধা এবং অসুবিধা বিরাজমান। সার্ভে কাজেও রয়েছে নানান অসুবিধা তবুও কিন্তু থেমে থাকছেনা কেউ।
তবে চলুন জেনে নেই কিছু অসুবিধা গুলোঃ-

প্রথমত আপনাকে একটি ইউএসএ ভেরিফাইড ব্যাংক কিংবা পেপাল একাউন্ট যোগাড় করতে হবে।
আপনাকে ওয়ান টাইম ভেরিফিকেশন প্রসেস এর মাধ্যমে আইডি ভেরিফাই করতে হবে।
অতিরিক্ত ভুল উত্তরের জন্য আপনার একাউন্ট টি ব্যান হতে পারে।
আপনাকে রাত ১২ টা থেকে সকাল ৮ পর্যন্ত এই টাইমে কাজ করতে হবে। যদি দিনের বেলায় সার্ভে পূরন করেন তবে আইডির সমস্যা হতে পারে।
যদি কোন কারনে আইডি নষ্ট হয়ে যায় কিংবা ব্যান হয়ে যায় তবে আপনাকে ব্যাংক এবং পেপাল দুটোই পরিবর্তন করতে হবে।
আপনাকে সব সমইয় চেক করতে হবে আপনার আইপি এবং ডিএনএস ১০০% ইউএসএ এর লোকেশন হয়েছে কিনা।
জাস্ট এসব জিনিস গুলো যদি এড়িয়ে চলা যায় তবে আপনি নিশ্চিন্তে কাজ করে যেতে পারবেন।
আর হ্যা আইপি কিনে কাজ করাটাও আসলে অসুবিধা কিন্তু এটা ছাড়া আপনি অনেক সার্ভে সাইটে প্রবেশ ও করতে পারবেন না।

তাহলে মূলত এই ছিলো সার্ভে কাজের সম্পর্কে বিস্তারিত। 

উপসংহারঃ

দীর্ঘ ৫-৬ মাস পর লিখতে বসলাম তাই কোন ভুল ত্রুটি হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

আমি আপনাদের টাকা দিয়ে উপকার করতে পারবোনা হয়তো কিন্তু এমন কিছু শিখিয়ে দিতে পারবো যার কারনে আর পকেট ফাকা থাকবেনা।




















এটা ছিলো জাস্ট একটা সাইটে পেমেন্ট প্রুফ  আমি জানি হয়তো এটা অনেক সামান্য কিন্তু যারা বেকার বসে আছে তাদের জন্য কিন্তু সামান্য বললে ভুল হবে। 
আর আপনি মাত্র ৪ ঘন্টা কাজ করলে সহজেই ৫ ডলার আয় করতে পারবেন।

অনেকেই আছেন যারা আইপি কিনে কাজ করতে পারবেন না তাদের জন্য আমি একটি গ্রুপ তৈরী করেছি যেখানে আমি কাজ করার জন্য ১ ঘন্টা পর পর কিছু আইপি শেয়ার করে থাকি আপনারা চাইলে জাস্ট ফ্রি আইপি আমাকে লাগবে আমাকে ম্যাসেজ দিলে আমি আপনাকে ১ ঘন্টার আইপি দিবো যতবার আপনি নিতে চান।


সো চাইলে আমার গ্রুপ থেকে ঘুরে আসতে পারো সার্ভে কাজ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানার জন্য আর ট্রিকবিডি থেকে অনুমতি পেলে অবশ্যই  ট্রিকবিডিতে আর্টিকেল শেয়ার করা হবে।

তাহলে সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকবেন আজকের মত বিদায় নিচ্ছি।
দেখা হবে অন্য কোন দিন নতুন কিছু নিয়ে সে পর্যন্ত ভালো থাকবেন। 

1 Comments

  1. grops e added hoice sob korace akhon account korte lagbe

    ReplyDelete

Post a Comment

Ad

Referral Banner

Ad

Referral Banner